ব্যাকলিংক কি? ইহার গুরুত্ব ও কিভাবে ব্যাকলিংক তৈরি করবেন?


ব্যাকলিংক কি: হ্যালো বন্ধুরা, আজ আমি এ নিবন্ধে আলোচনা করব ব্যাকলিংক কি, ব্যাকলিংক কীভাবে তৈরি করবেন এবং ওয়েবসাইট বা ব্লগের জন্য ব্যাকলিংক কতটা গুরুত্বপূর্ণ। 

অনেক ব্লগার যারা সম্প্রতি একটি নতুন ব্লগ বা ওয়েবসাইট তৈরি করেছেন তাদের "ব্যাকলিংক" শব্দটির অর্থ বুঝতে কিছুটা অসুবিধা হয়৷ এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর সহ, আমি আজকে আমার ব্লগ Tech Trip Now-তে খুব সহজ কথায় আপনাকে ব্যাখ্যা করব ব্যাকলিংক কি আর ব্যাকলিংক এর কাজ কি। তাহলে প্রথমেই জেনে নিই ব্যাকলিংক কি? 

ব্যাকলিংক কি? What is Backlink In Bangla

"ব্যাকলিংক" সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশানের (SEO) বিশ্বের সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত শব্দগুলির মধ্যে একটি।

what is backlinks


যখন একটি ওয়েবপেজ বা ওয়েবসাইটের লিংক অন্য ওয়েবসাইটের সাথে লিংক করা হয় তখন তাকে ব্যাকলিংক বলে। সহজ ভাষায় আমি যখন আমার ওয়েবসাইটের লিংক অন্য কোনো ওয়েবসাইটে রাখি তখন সেটিকে আমার ওয়েবসাইটের জন্য ব্যাকলিংক বলা হবে। সার্চ ইঞ্জিনে যেকোনো ওয়েবসাইটকে র‌্যাঙ্ক করার ক্ষেত্রে ব্যাকলিংক খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

ব্যাকলিংক ব্যাখ্যা করার জন্য আমি আপনাকে একটি মজার উদাহরণ দিই। আপনারা নিশ্চয়ই প্রায়ই শুনেছেন যে যখন দু'জন ঝগড়া করে, তখন একজন কথা বলে।


এই অ্যাক্সেসকে ব্যাকলিংক বলা হয় এবং উপরের শব্দটির অর্থ এর কর্তৃত্ব। অর্থাৎ একটি ওয়েবসাইটের সাথে অন্য ওয়েবসাইটের লিংকিংকে ব্যাকলিংক বলে। তো বন্ধুরা, আপনারা নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন যে ব্যাকলিংক কি। এখন আমি আপনাদের বলব কত ধরনের ব্যাকলিংক আছে এবং ওয়েবসাইটের জন্য ব্যাকলিংক এর গুরুত্ব কেমন।

ব্যাকলিংকের প্রকারভেদ: Types of Backlink in Bangla

Backlinks প্রধানত দুই প্রকার। 

1. Dofollow ব্যাকলিংক 

2. Nofollow ব্যাকলিংক 

উভয় ধরনের ব্যাকলিংকেরই নিজস্ব বিশেষত্ব রয়েছে। আসুন জেনে নিই Dofollow এবং Nofollow ব্যাকলিংক কী এবং তাদের কাজ কী।

1. Dofollow Backlinks :

সার্চ ইঞ্জিনে স্প্যাম লিংক সূচক কমানো এবং সার্চ ইঞ্জিনের ফলাফল আরও উন্নত করার লক্ষ্যে Google 2005 সালে Dofollow ব্যাকলিংকের ধারণাটি বাস্তবায়ন করে।

Dofollow ব্যাকলিংককে জুসি লিংকও বলা হয়। Dofollow লিংকগুলি যেকোন ওয়েবসাইটের SERP বাড়াতে সহায়ক। অর্থাৎ সার্চ ইঞ্জিন র‌্যাঙ্কিং পজিশন। Dofollow ব্যাকলিংক বোঝার জন্য, নিচের উদাহরণটি দেখুন, এরপর আমি আপনাকে অন্যভাবে ব্যাখ্যা করব Dofollow ব্যাকলিংক কী।

<a href="http://yoursite.com" rel="dofollow">Your Site</a>

অথবা

<a href="http://yoursite.com">Your Site</a>

অথবা

<a href="http://yoursite.com" rel="external">Your Site</a>


এখন আসি দ্বিতীয় উপায়ে : বন্ধুরা, আমি যখন আমার লিংক অন্য ওয়েবসাইটে লিংকিং করি এবং তারপরে যখন গুগল বা অন্য কোনো সার্চ ইঞ্জিনের রোবট সেই ওয়েবসাইটের লিংক ক্রল করে তখন #Dofollow ট্যাগটি রোবটটিকে লিংকটি ইনডেক্স করার অনুমতি দেয়। অর্থাৎ, আমি অন্য ওয়েবসাইটে যে লিংকটি দিয়েছি সেটি সার্চ ইঞ্জিন দ্বারা ইনডেক্স করা হবে। একে dofollow backlink বলে।

আরও পড়ুন...

সেরা 10 ফটো এডিটিং অ্যাপস

মেটাভার্স কি? জেনে নিন এই ভবিষ্যৎ প্রযুক্তির সব তথ্য।


Dofollow ব্যাকলিংকের সুবিধা: Benefits Of Dofollow Backlink 

1. Page rank উন্নত করে।

2. Blog বা website এর authority উন্নত করে।

3. সার্চ ইঞ্জিনে বিষয়বস্তুর র‌্যাঙ্কিং বাড়ায়।


2. Nofollow Backlinks :

বন্ধুরা, dofollow ব্যাকলিংক কি তা জানার পর আপনি নিশ্চয়ই অনেকটাই বুঝতে পেরেছেন যে nofollow ব্যাকলিংকের কি হতে পারে। যদি বুঝতে না পারেন তাহলে জেনে নেওয়া যাক Nofollow ব্যাকলিংক সম্পর্কে।


Nofollow লিংকগুলি জুসি লিংক নয় এবং এই ধরনের ব্যাকলিংক গুগল বা সার্চ ইঞ্জিনে ইনডেক্স হয় না। যখন গুগল বা সার্চ ইঞ্জিনের একটি রোবট একটি ওয়েবসাইট ভিজিট করে তখন #nofollow এর ট্যাগটি রোবটটিকে নোফলো ব্যাকলিংকগুলির লিংকটি ইনডেক্স করতে বাধা দেয়। কিন্তু এর মানে এই নয় যে nofollow ব্যাকলিংক কোন কাজে আসবে না। Nofollow ব্যাকলিংকগুলি ওয়েবসাইটের র‌্যাঙ্ক বাড়াতেও সহায়ক। কিন্তু ডুফলো ব্যাকলিংকের তুলনায় এটি খুব বেশি সুবিধা দেয় না। তবে যখনই আপনি ব্যাকলিংক তৈরি করবেন, তখন আপনার উচিত dofollow-এর পাশাপাশি nofollow লিংকও তৈরি করা। কারণ এমন অনেক অথরিটি ওয়েবসাইট আছে যেখান থেকে আপনি nofollow লিংক তৈরি করে প্রচুর পরিমানে ট্রাফিক পেতে পারেন এবং এটি আপনার ওয়েবসাইটের র‌্যাঙ্কিং বৃদ্ধির জন্য খুবই কাজ করবে।

<a href="http://yoursite.com" rel="nofollow">Your Site</a>

অথবা

<a rel="nofollow" href="http://yoursite.com">Your Site</a>

Nofollow ব্যাকলিংকের সুবিধা: Benefits Of Nofollow Backlink

1. ট্রাফিক বাড়াতে সহায়ক।

2. Nofollow ব্যাকলিংকগুলি ওয়েবসাইটকে ডুফলো ব্যাকলিংক এর সাথে ভারসাম্য বজায় রাখতে সুবিধা দেয়। এটি আপনাকে এমন সব আপডেট থেকে নিরাপদ রাখে যার জন্য আপনাকে ব্যাকলিংক তৈরি করার জন্য তাড়াও দিবে।

3. DA, PA এবং অন্যান্য মেট্রিক্সের উন্নতিতে ভুমিকা রাখে।


আরও পড়ুন...

ডোমেইন অথরিটি কি? কিভাবে ডোমেইন অথরিটি বাড়ানো যায়?


Dofollow এবং Nofollow ব্যাকলিংকের মধ্যে পার্থক্য:

উভয় ধরণের ব্যাকলিংক বোঝার পরেও যদি আপনার মনে কোন সন্দেহ থেকে যায় তবে আমি একটি সামাজিক উদাহরণ দিয়ে ব্যাখ্যা করব।

1. Dofollow ব্যাকলিংক হলো " আমার ভাই এই এলাকা প্রধান " এর মত সম্পর্কের ধরন। এখানে আপনার ক্ষমতা বোঝার দরকার নেই। আপনার অবশ্যই কিছু আবেগ থাকবে।

2. Nofollow ব্যাকলিংক হলো “আমার দূর সম্পর্কিয় ভাই এই এলাকার প্রধান” এই লাইন থেকে এটা স্পষ্ট যে খুব বেশি ফল হবে না, তবে প্রয়োজনে কিছু কাজ করা হবে।


তো বন্ধুরা, আপনারা নিশ্চয়ই অনেকটাই বুঝতে পেরেছেন যে ব্যাকলিংক কি এবং এটি একটি ওয়েবসাইটের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ।

এখন আমি আপনাকে ব্যাকলিংক সম্পর্কিত এমন কিছু শর্ত অথবা ফ্যাক্টর সম্পর্কে বলব যেগুলি ছাড়া ব্যাকলিংকের তথ্য অসম্পূর্ণ থাকবে। ফ্যাক্টরগুলো হল:

1. Link Juice : যখন কোনো ওয়েব পেজ বা ওয়েবসাইটের লিংক আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটের কোনো পেজ বা পোস্টের সাথে লিংক করা হয়, তখন সেখান থেকে লিংক ফ্লো হয়ে আপনার ওয়েবসাইটে পৌঁছায়। একে লিংক জুস বলে। লিংক জুস যেকোনো নিবন্ধ বা ওয়েবসাইটকে র‌্যাঙ্ক করতে সাহায্য করে। সেইসাথে এটি আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বাড়ায় ।

2. High-Quality Links : High-Quality ব্যাকলিংকগুলিকে উচ্চ গুণসম্পন্ন ব্যাকলিংক বলা হয়। একটি High DA, PA এর ওয়েবসাইট থেকে নেওয়া লিংক-কে High-Quality Link বলা হয়। এই ধরনের লিংক আপনার ওয়েবসাইটের র‌্যাঙ্ক বাড়াতে কাজ করে। এমনকি যদি আপনি এই ধরনের ওয়েবসাইট থেকে একটি nofollow ব্যাকলিংকও পান তবুও এটি আপনার ওয়েবসাইটের র‌্যাঙ্ক বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে।

3. Low-Quality Links : Low-Quality লিংকগুলি সাধারণত বিভিন্ন স্প্যাম সাইট, automated ব্যাকলিংক বা porn ওয়েবসাইট থেকে তৈরি করা হয়। এই ধরনের লিংক আপনার ওয়েবসাইটের জন্য খুবই বিপজ্জনক। 

4. Internal Links : Internal Links হল সেই সমস্ত লিংক যা আপনার ওয়েবসাইটের কোনও পৃষ্ঠা বা নিবন্ধ থেকে আপনার নিজের ওয়েবসাইটের অন্য কোনও পৃষ্ঠা বা নিবন্ধে লিংক দেয়। অর্থাৎ একটি ওয়েবসাইটের মধ্যে দুই বা ততোধিক পৃষ্ঠায় একে অপরকে লিংকিং করে তৈরী করা লিংকগুলোকে ইন্টারনাল লিংক বলে। বেশিরভাগ ব্লগাররা এমন পোস্ট লেখেন যাতে তারা আরও বেশি বেশি অভ্যন্তরীণ বা ইন্টারনাল লিংক দিতে পারে। এর অনেক সুবিধা রয়েছে। প্রথম সুবিধা হল ব্যবহারকারী আপনার ওয়েবসাইটের অনেক পোস্ট পড়ে। দ্বিতীয় সুবিধা হল আপনি একটি ব্যাকলিংক পাবেন এবং তৃতীয় সুবিধা হল আপনার ওয়েবসাইট বাউন্স রেট কমে যাবে যা আপনার ওয়েবসাইটের র‍্যাঙ্কিং বাড়াতে সাহায্য করে। এর আরেকটি সুবিধা হলো আপনার মনের মত কিওয়ার্ড ব্যবহার করে আপনি আপনার যেকোনো পোস্টে ভালো ব্যাকলিংক দিতে পারবেন।

5. Anchor Text : হাইপারলিংক ব্যবহার করে যে টেক্সট ব্যবহার করা হয় তাকে anchor text বলে। অ্যাঙ্কর টেক্সটে আপনার কীওয়ার্ড ব্যবহার করে ব্যাকলিংক তৈরি করা হয়। এটি ব্যাকলিংক তৈরির সবচেয়ে জনপ্রিয় উপায় এবং এটি সবচেয়ে বেশি কাজ করে। যখনই আপনি যেকোনো জায়গা থেকে ব্যাকলিংক করবেন তখন অবশ্যই anchor text ব্যবহার করবেন।

কিভাবে ব্যাকলিংক তৈরি করবেন?

কিভাবে একটি ব্যাকলিংক তৈরি করতে হয় তা নিয়ে প্রতিটি নতুন ব্লগারের মনে যথেষ্ট বিভ্রান্তি রয়েছে। আপনার ব্লগের জন্য মানসম্পন্ন ব্যাকলিংক পাওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ যা আপনার ব্লগে ভিজিটর বাড়াতে এবং জনপ্রিয় করতে সাহায্য করে।

ব্যাকলিংক তৈরির কোন সীমা নেই। আপনি যত খুশি ব্যাকলিংক তৈরি করতে চান তা করতে পারেন। আপনি যদি সেই সমস্ত লিংকগুলি মানসম্পন্ন ওয়েবসাইট থেকে তৈরি করেন তাহলে আপনি হাজার হাজার ব্যাকলিংক তৈরি করতে পারবেন না কেন।

যদি সেগুলি মানসম্পন্ন ওয়েবসাইট থেকে না হয় তবে আপনার ব্লগ সেখান থেকে কোনও লাভবান হবে না। বরং গুগল আপনার ব্লগকে Penalty দিতে পারে।

how to create backlinks


অতএব আপনি যদি আপনার ব্লগের জন্য ব্যাকলিংক তৈরি করতে চান তবে নীচের পয়েন্টগুলি খুব মনোযোগ সহকারে বুঝে নিন।

1. Comments Backlinks

এই ধরনের লিংক অন্য ওয়েবসাইটের পোস্টে মন্তব্য করে তৈরি করা হয়। সাধারণত এই ধরনের ব্যাকলিংক nofollow ব্যাকলিংকের ক্যাটাগরিতে আসে। কিন্তু এটি কোনো না কোনোভাবে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য উপকারী। তাই মন্তব্য ব্যাকলিংক তৈরি করাও খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

2. Guest Post Backlinks

অন্য ওয়েবসাইটের জন্য একটি পোস্ট লিখে বা আপনার ওয়েবসাইট বা নিবন্ধের লিংক টেক্সট অ্যাঙ্করে রেখে তৈরি করা লিংকগুলিকে গেস্ট পোস্ট ব্যাকলিংক বলে। গেস্ট পোস্টিং দ্বারা তৈরি ব্যাকলিংকগুলি বেশিরভাগই ডুফলো ব্যাকলিংক। এই ধরনের ব্যাকলিংক সাইটকে খুব দ্রুত সার্চ ইঞ্জিনের র‍্যাঙ্কে নিয়ে আসে।

3. Profile backlink

এরকম অনেক ওয়েবসাইট আছে যেখানে আপনি প্রোফাইল ব্যাকলিংক তৈরী করতে পারেন। এ লিংকগুলো Dofollow এবং nofollow হয়ে থাকে। এই ধরনের ব্যাকলিংকগুলিও খুব দরকারী এবং SERP বৃদ্ধিতে সহায়ক।

4. Internal backlinks

বন্ধুরা আপনি যখনই একটি নিবন্ধ লিখবেন অবশ্যই আপনার অন্য পোস্টের ওয়েব পেজের লিংক দিবেন। আমি আগেই বলেছি যে এই ধরনের লিংকগুলি আপনার সাইটের মান বাড়াতে খুব ভাল ভূমিকা পালন করে।


কিভাবে Dofollow এবং Nofollow ব্যাকলিংক সনাক্ত করতে হয় :

যখন এত তথ্য দেওয়া হয়েছে তখন ডফলো এবং নোফলো ব্যাকলিংকগুলি কীভাবে খুঁজে পাওয়া যায় তা জেনে নেয়াও গুরুত্বপূর্ণ।

বন্ধুরা, backlink dofollow নাকি nofollow তা খুঁজে বের করা খুব সহজ। এটি করার অনেক উপায় আছে। তবে আমি আপনাকে দুটি সহজ উপায় সম্পর্কে বলব।

1. প্রথম উপায়: বন্ধুরা, প্রথম উপায় হল আপনি আপনার ইন্টারনেট ব্রাউজারে NoFollow এক্সটেনশন নামে একটি এক্সটেনশন ইন্সটল করতে পারেন। আপনাকে শুধু আপনার ব্রাউজারের মেনু খুলতে হবে তারপর অ্যাড-অনে গিয়ে NoFollow এক্সটেনশন সার্চ করে ইন্সটল করতে হবে। ইন্সটল করার পর যে সাইট থেকে ব্যাকলিংক করেছেন সে সাইটটি ওপেন করে NoFollow এক্সটেনশনটি চালু করুন। সাথে সাথে নো-ফলো লিংকগুলোতে একটি মার্ক দেখা যাবে যা থেকে আপনি জানতে পারবেন আপনি কী ধরনের ব্যাকলিংক নিয়েছেন।

2. দ্বিতীয় উপায়: আপনি যদি এক্সটেনশন ইনস্টল করতে না চান তাহলে এই পদ্ধতিটি ফায়ারফক্স ব্রাউজারের মাধ্যমে করতে পারেন। এজন্য আপনাকে যেকোনো একটি লিংক নির্বাচন করতে হবে। এটি নির্বাচন করার পরে তার উপর রাইট ক্লিক করুন এবং তারপরে ভিউ সিলেকশন সোর্সে ক্লিক করুন। নিচের ছবিতে দেখুন।

NoFollow-backlink-check
তাহলে আপনি সিলেক্ট করা লিংকের সোর্স কোড পাবেন যেখান থেকে আপনি সহজেই জানতে পারবেন লিংকটি dofollow নাকি nofollow।

শেষকথাঃ

ব্যাকলিংক সবসময় ব্লগ এবং ওয়েবসাইটের জন্য উপকারী হয়ে থাকে। আমি আশা করি এই নিবন্ধটি থেকে আপনি অবশ্যই ব্যাকলিংক কি এবং কীভাবে ব্যাকলিংক তৈরি করবেন সে সমস্ত বিষয় সম্পর্কে সম্পূর্ণভাবে জানতে পেয়েছেন। তাহলে এখনি গুগলে আপনার ব্লগকে দ্রুত র‌্যাঙ্ক করার জন্য ব্যাকলিংক করা শুরু করুন এবং আমার এ নিবন্ধটি কেমন লেগেছে তা কমেন্ট করে জানাবেন। ধন্যবাদ।



*

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)
নবীনতর পূর্বতন

ads

ads